Breaking News
Home > ভ্রমন > ঘুরে আসুন মায়াবী দ্বীপ সন্দ্বীপ । ভাবছেন কিভাবে যাবেন ??

ঘুরে আসুন মায়াবী দ্বীপ সন্দ্বীপ । ভাবছেন কিভাবে যাবেন ??

সন্দ্বীপ বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্ব উপকুলে অবস্থিত একটি দ্বীপ । এটি বঙ্গোপসাগরের উত্তর পূর্বকোনে মেঘনা নদীর মোহনায় অবস্থিত । চতুর্দিকে নদী আর সাগর বেষ্টিত এই ছোট্ট দ্বীপ সন্দ্বীপ । শত বছরের পুরনো অতিহ্য ইতিহাসে ভরপুর । মনোরম স্নিগ্ধ পরিবেশ মুক্ত হাওয়া মনে হয় পৃথিবীর আর কোথাও নেই । সন্দ্বীপ সম্পর্কে উইকিতে বিস্তারিত জানতে পারবেন এখানে –

ইংরেজিঃ http://goo.gl/v4IIz8

বাংলায়ঃ http://en.wikipedia.org/wiki/Sandwip

নিচের দুইটি লিঙ্কে ক্লিক করে দ্বীপের দুইটি ম্যাপ পাবেন । যেখানে কিছু তথ্য চিত্র আকারে দেওয়া আছে ।

Click This Link

Click This Link

এবার এ চিত্রটি দেখুন –

সন্দ্বীপ ভ্রমণে আপনাকে (বঙ্গোপসাগরের মোহনা )এ নদীর উপর দিয়ে যেতে হবে । ভয় চিন্তা হচ্ছে এত বড় নদী আর সাগরের কথা শুনে । ঝেড়ে ফেলুন আপনার সকল চিন্তা । ভ্রমণপিপাসু মানুষের জন্য এখনি সঠিক সময় দ্বীপ ভ্রমণ করে আসার । বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় বেড়িয়েছেন পাহাড় দেখেছেন পর্বত দেখেছেন সমুদ্র দেখেছেন । আপনার ভ্রমণের আনন্দ কে দ্বিগুণ করতে এবার না হয় সন্দ্বীপ থেকে ঘুরে আসুন । এত্ত এত্ত বড় নদী !!সাহস হচ্ছে না !! ব্যাপার না ম্যান । ভ্রমণ করতে গেলে একটু সাহস লাগে ভয় থাকলে ভ্রমণের মজাই থাকে না । আপনার জন্য সুখবর হল শীতের এই মৌসুমে বেশী সময় নিয়ে নদীতে থাকতে হবে না । বড়জোর মাত্র ত্রিশ মিনিট সময় থাকতে হবে । এই সময়ে নদী অনেক কোমল । সাতার জানলে তো সাঁতরাতে ইচ্ছা করবে । এখন কি একটু সাহস হচ্ছে ? তাহলে আর দেরী কেন দলবেঁধে অথবা দুইজন মিলে যেভাবেই সুবিধে বেড়িয়ে পড়ুন । ঘুরে আসুন সন্দ্বীপ থেকে আর চমকে দিন সবাইকে ।

কিভাবে যাবেন ?
খুবসহজে হেলিকপ্টার করে যেতে পারেন । তবে এটা ব্যায়বহুল । সাধারণ মানুষের সাধ্যের বাহিরে ।


এছাড়া নৌ পথকে বেঁচে নিতে হবে । নৌ পথের ভ্রমণের আনন্দ অন্যরকম , অন্যান্য ভ্রমণের চেয়ে একেবারেই আলাদা । নৌ পথের অন্যতম মাধ্যম হল –

স্টীমার , লঞ্চ ,স্পীডবোট ।
ষ্টীমার – জাহাজে ভ্রমণ । এই ভ্রমনের মজা অনেক । সময় সাপেক্ষ আনন্দ আছে বটে । এজন্য আপনাকে যেতে হবে সদরঘাট । সপ্তাহে তিন দিন এই সার্ভিস থাকে সকাল ৯ টায় সদরঘাট ছেড়ে যায় সন্দ্বীপের উদ্দেশ্যে । বর্তমান সময়ে এই ভ্রমণে একটু সমস্যা হবে, বিরক্ত বোধ করতে পারেন । তার অন্যতম কারন হল সন্দ্বীপের পশ্চিমে জেগে উঠা চর । যার কারনে উঠা নামাতে দীর্ঘ সময় এবং কষ্ট পোহাতে হবে ।


লঞ্চ- আমরা দ্বীপের মানুষেরা বলে থাকি ট্রলার । কাঠের তৈরি অনেকটা নৌকার মতই । এতে করে যেতে পারেন । এজন্য আপনাকে যেতে হবে কুমিরা সন্দ্বীপ ঘাট । এখানে যাত্রী বহনযোগ্য লঞ্চ আছে , সাথে মাল বোঝায় করে এমন লঞ্চে করে যেতে পারেন । এটাতে সময় বাচবে খরচের পরিমাণ ও কম । উঠা নামায় খানিকটা সমস্যা হবে । এ যাত্রায় আনন্দ আছে তবে অতিরিক্ত যাত্রী , মাল বোঝায় থাকার কারন সেই আনন্দ ফিকে হতে পারে ।

স্পীডবোট -দ্বীপে আসা যাওয়ার জন্য বর্তমান সময়ের অন্যতম বাহন । দ্রুতগতি সম্পন্ন এই বাহন মাত্র কয়েক মিনিটে আপনাকে দ্বীপে পৌঁছে দিবে । এক্ষেত্রে গুনতে হবে ৩৫০ টাকা । এ ভ্রমনে আনন্দ আছে সময়ও বাঁচবে । উঠা নামায় সমস্যা কাদা মাখামাখি করতে হবে না । একাধিক সঙ্গী হলে একটা বোট ভাড়া করে যেতে পারেন ।একজন বা দুইজন হলে নরমালি যাওয়ায় ভালো । এজন্য আপনাকে যেতে হবে কুমিরা সন্দ্বীপ ঘাট । আরও দুই একটা ঘাট রয়েছে তবে সন্দ্বীপ শহরে যেতে এটাই সহজ পথ এটাই বেস্ট ।

ভয় দূর করতে কয়েক সেকেন্ডের একটি ভিডিও দেখুন –


কুমিরা যাবেন কিভাবে ?
একেবারেই সহজ দেশের যেই প্রান্তে থাকুন না কেন আপনাকে চট্টগ্রাম আসতে হবে । (সড়ক যোগে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম আসার পথে কুমিরা হয়ে আসতে হবে ,সেক্ষেত্রে চাইলে সরাসরি কুমিরাতেই নামতে পারবেন ) । চট্টগ্রাম শহরের যে কোন জায়গা থেকে সরাসরি চলে আসতে পারেন কুমিরা । সহজ এবং সময় বাচাতে ট্যাক্সি ভাড়া করতে পারেন । সর্বোচ্চ ২০০ থেকে ২৫০ টাকা খরচ পড়বে ।

এই তিনটি মাধ্যমের যেকোন একটি আপনি বেঁছে নিতে পারেন । আমি বলব এই সময়ে ভ্রমণ সুখকর করতে স্পীড বোট টাই নিরাপদ এবং আনন্দদায়ক ।

ধরে নেওয়া যাক আপনি সন্দ্বীপ ঘাটে পৌঁছে গেছেন । তাহলে কি করবেন ?
প্রথমে ঘাট থেকে সন্দ্বীপ টাউন কমপ্লেক্স আসতে হবে । ট্যাক্সি ভাড়া করে আসা বেটার ১৫০ টাকা খরচ পড়বে । এখানে স্বল্পমূল্যে থাকার জন্য গেস্ট হাউজ রয়েছে । খাওয়ার জন্য ভালো মানের কিছু রেস্টুরেন্ট পাবেন হাতের কাছেই ।

তাবু করে কি থাকা যাবে ?
আবার জিগায় ! অবশ্যই থাকতে পারবেন । সেটা অনেক আনন্দের / উপভোগ্য হবে । তাহলে কোন দেরী নয় ? কমপ্লেক্স থেকে সোজা সরাসরি চলে যান দ্বীপের পশ্চিমে একেবারেই নদীর কিনার ঘেঁষে । এক্ষেত্রে স্থানীয়দের সাহায্য নিতে পারেন । উপযুক্ত জায়গা নির্বাচন করে তাবু করে নিন । রাতের মিটিমিটি আলো , খোলা আকাশের নিচে নদীর কলকল ধ্বনি ঘন কুয়াশায় কয়েকটি রাত পার করে দিতে পারবেন একেবারেই অনায়াসে । দ্বীপের বিখ্যাত ফার্মেসী অব কংগ্রেস নেই তাতে কি ? আপনার সাহায্য কবির কফি হাউজ তো এখনো আছেই । যে কাউকে জিজ্ঞেস করলেই কবির কফি হাউজের দেখা মিলবে । কফির পাশাপাশি সাহায্য পেয়ে যাবেন !!

দ্বীপের কোন জায়গায় ঘুরতে যাবেন ?
অবাক হওয়ার কিছুই নেই ! দ্বীপের প্রত্যেকটি জায়গা দেখার মতন । ফসল ভরা মাঠ সবুজ প্রকৃতি, হাট ,বাজার সব কিছু । দ্বীপের উত্তর থেকে দক্ষিনের সব প্রান্ত ঘুরে দেখতে পারেন অনায়াসে । দ্বীপের উত্তরে তাজমহলের আদলে নির্মিত শত বছরের পুরনো মরিয়ম বিবি সাহেবানী মসজিদ । মসজিদ সংলগ্ন বড় দিঘী , মাজার । দ্বীপের দক্ষিনের ঐতিহ্যবাহী শুকনা দিঘী । এছাড়া রয়েছে অসংখ্য মসজিদ ,স্কুল, মাদ্রাসা , বড় বড় খেলার মাঠ। ভাগ্য ভালো থাকলে দেখেতে পারবেন পুরনো বাউল জারী সারি গানের আসর ।

কি কি খেতে পাওয়া যাবে ?

নিত্য প্রয়োজনীয় সমস্ত খাবার আপনি পেয়ে যাবেন অতি সহজে । নিজেরা বাজার করে তৈরি করে নিতে পারেন । নদীর মাছ মাংস থেকে শুরু করে শীতের পিঠা সব কিছু পাবেন । আর এই মৌসুমের সবচেয়ে সুস্বাদু খেজুরের রসের সিন্নি । এছাড়া দ্বীপের বিখ্যাত মিষ্টি খেয়ে নিতে পারেন । সেটার জন্য আপনাকে দ্বীপের দক্ষিনে শিবের হাট পর্যন্ত যেতে হবে । রিক্সা টেক্সি বাইকে করে খুব সহজে যেতে পারবেন ।

সন্দ্বীপ ভ্রমণে কত টাকা খবচ পড়বে ?

হাজার তিনেক টাকার মধ্যে আপনি খুব ভালোভাবে ভ্রমণ করে আসতে পারবেন এই দ্বীপ থেকে । স্থানীয় কোন বন্ধু থাকলে তো আর কথা নেই । এই শীতের সময়টা হচ্ছে উপযুক্ত আপনার জন্য । সব কিছু ঘুরে দেখে আসার জন্য এই সময়ের কোন বিকল্প নেই ।

পিকনিক / সমুদ্র ভ্রমণ করা যাবে কি ?

পিকনিক স্পটের সমুদ্র ভ্রমণের ক্ষেত্রে এই দ্বীপকে বেঁছে নিতে পারেন । এর বিকল্প মনে হয় না আর কোথাও আছে । অনেক তো কক্সবাজার , রাঙ্গামাটি বান্দরবন ঘুরে এসেছেন । এবার না হয় পিকনিক করতে চলে যান দ্বীপে । সমুদ্র ভ্রমণ হল পাশাপাশি পিকনিকের আনন্দ নিয়ে ফিরতে পারবেন । সুখবর হল দিনের মধ্যে এই দ্বীপে গিয়ে পিকনিক করে আবার ফিরতে পারবেন এই সময়ে । উচ্চবিলাসী সমুদ্র ভ্রমনের জন্য ষ্টীমার বা সিটাক ভাড়া নিতে পারেন সেক্ষেত্রে সদর ঘাট অথবা কুমিরা ঘাট এ যোগাযোগ করতে হবে । সম্ভবত বি আই ডব্লিউ টি সি এর অনুমতি নিতে হবে । (এ ক্ষেত্রে খরচ ও বেশ পড়বে)

কারো সাহায্য কি পাওয়া যাবে ?

অবশ্যই । এটুকু জেনে রাখুন এটি একটি ভাঙ্গন কবলিত অঞ্ছল যার দরুন পর্যটন হিসাবে এর পরিচিতি নেই বললে চলে । ব্যাক্তিগত বা প্রাতিষ্ঠানিক কোন নেটওয়ার্ক ও নেই । অবশ্য অনলাইন (ফেইসবুক) মাধ্যমে দ্বীপের অসংখ্য অগণিত নিবেদত প্রাণ রয়েছে যাদের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে আপনার / কোম্পানির ভ্রমণ সহজতর হবে বলে আশা করি । এ থেকে বিভিন্ন তথ্য পাবেন বলে নিশ্চয়তা দিতে পারি । দ্বীপের মানুষের আন্তরিকতা ? লজ্জায় ডুবালেন বস !! নিন্মে কয়েকটির নাম লিঙ্ক সহকারে দেওয়া হল । যোগাযোগ করেই দেখুন –

দ্বীপের খবর – Click This Link
দ্বীপের কথা – Click This Link
দ্বীপের আলো – Click This Link
দ্বীপের আহ্বান – https://www.facebook.com/Newss.sandwip?fref=ts

তাহলে আর দেরী কেন ? হয়ে যাক এবারের ভ্রমণ সন্দ্বীপে । প্ল্যানিংটা সেরে ফেলুন ঝটপট । আর ঘুরে আসুন মায়াবী স্বর্ণ দ্বীপ সন্দ্বীপ থেকে ।।

[ এই পোস্ট টি আপনার জন্য নয় যারা নিয়মিত সন্দ্বীপ আসা যাওয়া করেন । দ্বীপের অসংখ্য মানুষ রয়েছেন যারা জীবন জীবিকার প্রয়োজনে দীর্ঘদিন ধরে দ্বীপের বাহিরে অবস্থান করছেন । এমন অনেকেই রয়েছেন ভিটে মাটি হারিয়ে দ্বীপ ছেড়ে পারি জমিয়েছেন পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন জায়গায় । হয়ত শিকড়ের টানে দ্বীপে ফিরতে চান একবার ঘুরে দেখতে চান প্রিয় জন্মভূমি প্রিয় মাটি প্রিয় স্কুল প্রিয় মাঠ । এই পোস্ট টি আপনাদের জন্য । ]

একটা সময় এই দ্বীপে পৃথিবীর নানান দেশের লোকজন / পর্যটকের আগমন হত । অনেকে ঘুরতে আসতেন ,অনেকে বিভিন্ন কাজে আসতেন এই দ্বীপে । দেশের অভ্যন্তরের ভিন্ন ভিন্ন অঞ্চলের হাজারো মানুষ থাকলেও দেশের বাহিরের মানুষের দ্বীপ ভ্রমণের চিত্র আজ খুব একটা দেখা যায় না । এর নানান কারন থাকতে পারে । সেটা আমার অজানা ।

নিয়মিত ভাঙন এর সৃষ্টি সুন্দর কে অমলিন করে দিয়েছে বারে বারে । পৃথিবী যেখানে এগিয়ে যাচ্ছে দিনে দিনে । তথ্য প্রযুক্তি আধুনিকতায় সমৃদ্ধ হচ্ছে । সেখানে এই দ্বীপের জনপথের মানুষ এখনো সংগ্রাম করছে ।

পর্যটন হিসাবে এই দ্বীপের স্থান কখনো হবে কিনা আমি জানি না । দ্বীপের রূপরেখা দ্বীপের কোলাহল ফিরে পাওয়া যাবে না হয়ত । তাতে কি ? আমি আশাবাদী । আমার স্বপ্নের লজ্জা নেই , অভিমান নেই স্বপ্ন দেখি এক নতুন দিগন্তের ………

Collected: somewhereinblog.net

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *