Breaking News
Home > রেসিপি > বৃষ্টিতে ঝাল টক মিষ্টি (৬ টি অসাধারণ আচারের রেসিপি)

বৃষ্টিতে ঝাল টক মিষ্টি (৬ টি অসাধারণ আচারের রেসিপি)

জানালার বাইরে বৃষ্টি ভেজা প্রকৃতি। মনের ভেতরে গরম-গরম খিচুড়ি খাওয়ার ইচ্ছা। এর সঙ্গে যদি একটু আচার হয় জমে উঠবে ভোজ। কয়েকটি আচারের রেসিপি দিয়েছেন ফাতিমা আজিজ

তেঁতুল-পুদিনায় রসুনের আচার

উপকরণ: এক কোষের রসুন পৌনে ১ কাপ, তেঁতুলের ক্বাথ ১ কাপের তিন ভাগের এক ভাগ, পাঁচফোড়ন গুঁড়া ১ চা-চামচ, জিরার গুঁড়া ১ চা-চামচ, পুদিনাপাতা বাটা ১ টেবিল চামচ, আখের গুড় ১ কাপের তিন ভাগের এক ভাগ, সিরকা ১ টেবিল চামচ, সরিষার তেল পৌনে ১ কাপ, সোডিয়াম বেঞ্জোয়েট চা-চামচের আট ভাগের এক ভাগ ও লবণ আধা চা-চামচ।

প্রণালি: রসুনের খোসা ছাড়িয়ে নিন। তেল গরম করে রসুন দিয়ে মিনিট খানেক ভেজে তেঁতুলের ক্বাথ দিয়ে নাড়ুন। ফুটে উঠলে গুড় দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নাড়ুন। গুড় ভালোমতো মিশে গেলে পুদিনাপাতা বাটা ও ভাজা মসলার গুঁড়া দিয়ে নাড়ুন। ১ মিনিট পর চুলা বন্ধ করে সিরকায় সোডিয়াম বেঞ্জোয়েট গুলে আচারে ঢেলে দিন। নেড়ে মিশিয়ে নিয়ে ঠান্ডা হলে বোতলে ভরে মুখ বন্ধ করে রাখুন। বেশি দিন ভালো রাখতে আচারের বয়ামের মুখ খুলে মাঝে মাঝে রোদে দিতে হবে।

আমলকীর টক ঝাল মিষ্টি আচার

আমলকীর টক ঝাল মিষ্টি আচারউপকরণ: আমলকী ৫০০ গ্রাম, তেঁতুল ২০০ গ্রাম, হলুদ গুঁড়া ১ চা-চামচ, মরিচ গুঁড়া ২ চা-চামচ, ভাজা মেথির গুঁড়া ১ চা-চামচ, লবণ ২ চা-চামচ, সরিষার তেল আধা কাপ, সরিষা ১ চা-চামচ, মেথি আধা চা-চামচ ও আখের গুড় দেড় কাপ।
প্রণালি: আমলকী ধুয়ে ২-৩ টুকরা করে নিন। তেঁতুল ১ কাপ গরম পানিতে ভিজিয়ে রেখে বিচি ফেলে ঘন ক্বাথ তৈরি করুন। এর সঙ্গে হলুদ, ভাজা ধনে, ভাজা মরিচ, ভাজা জিরা, ভাজা মেথির গুঁড়া ও লবণ মিশিয়ে নিন। কড়াইয়ে সিকি কাপ সরিষার তেল গরম করে আমলকীর টুকরাগুলো সামান্য ভেজে নিয়ে ঢেকে অল্প আঁচে কিছুক্ষণ রান্না করুন। নরম হয়ে এলে মসলা মিশ্রিত তেঁতুলের ক্বাথ ও বাকি তেল দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ৫-১০ মিনিট রান্না করুন। তারপর গুড় দিয়ে নাড়ুন। খেয়াল রাখতে হবে আচার যেন পুড়ে না যায় ও গুড় যেন গলে আচারের সঙ্গে ভালোভাবে মিশে যায়। অন্য একটি প্যানে ২ টেবিল চামচ সরিষার তেল গরম করে তাতে আস্ত সরিষা ও মেথির ফোড়ন দিয়ে আমলকী ও তেঁতুলের মিশ্রণ ঢেলে দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নেড়ে চুলা বন্ধ করে দিন। ঠান্ডা হলে তিন থেকে চার দিন রোদে দিয়ে বাতাস ঢোকে না এমন কাচের বোতলে সংরক্ষণ করুন।

বোম্বাই মরিচের আচার
বোম্বাই মরিচের আচারউপকরণ: কাঁচা ও পাকা বোম্বাই মরিচ ২০০ গ্রাম, তেঁতুলের ঘন ক্বাথ ২০০ গ্রাম, হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ, রসুনের কোয়া ৬টি, ভাজা পাঁচফোড়ন গুঁড়া দেড় চা-চামচ, সিরকা দিয়ে বাটা সাদা সরিষা ১ টেবিল চামচ, সরিষার তেল এক কাপের তিন ভাগের এক ভাগ, লবণ দেড় চা-চামচ, সাদা সিরকা এক কাপের তিন ভাগের এক ভাগ ও চিনি সিকি কাপ।
প্রণালি: মরিচ ধুয়ে-মুছে শুকিয়ে নিন। ১৫০ গ্রাম মরিচ সামান্য সিরকা দিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। বাকি মরিচ মাঝখান থেকে চিরে নিন। ১ কাপ গরম পানিতে তেঁতুল কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রেখে বিচি ফেলে ঘন ক্বাথ তৈরি করে তারের চালুনি দিয়ে ছেঁকে নিন। প্যানে তেল গরম করে আঁচ কমিয়ে দিন। এবার আস্ত রসুন ও পাঁচফোড়নের ফোড়ন দিয়ে হলুদ ও সরিষা বাটা দিয়ে মিনিট খানেক নেড়ে সিরকা ও লবণ দিয়ে কিছুক্ষণ কষিয়ে নিন। এতে মরিচের পেস্ট অর্ধেক ফালি করা মরিচগুলো দিয়ে নাড়ুন।
এবার তেঁতুলের ক্বাথ দিয়ে মিশিয়ে নিন। একটু মাখা মাখা হলে ভাজা জিরার গুঁড়া দিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নেড়ে দুই থেকে তিন মিনিট পর চুলা বন্ধ করে দিন। বোতলে ভরে রোদে দিয়ে আচার সংরক্ষণ করা যায়।
কামরাঙার কাশ্মীরি আচার

কামরাঙার কাশ্মীরি আচারউপকরণ: কামরাঙা (পাতলা টুকরা করে কাটা) ২ কাপ, চিনি ১ থেকে দেড় কাপ, আদা স্লাইস (গোল কাটে) আড়াই চা-চামচ, শুকনো মরিচ ২ চা-চামচ, সিরকা সিকি কাপ ও লবণ ১ টেবিল চামচ।
প্রণালি: কামরাঙায় লবণ মেখে ৩ থেকে ৪ ঘণ্টা রেখে দিন। এবার লবণ পানি ছেঁকে কামরাঙা ২-৩ বার ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। শুকনা মরিচের বিচি ফেলে কাঁচি দিয়ে গোল করে কেটে নিন। আদা পাতলা গোল স্লাইস করে কেটে নিন। চাইলে একটু নকশা করেও কাটতে পারেন। এবার কড়াইতে সব উপকরণ একসঙ্গে মিশিয়ে চুলায় দিয়ে মাঝারি আঁচে কিছুক্ষণ পরপর নাড়ুন। কামরাঙা সেদ্ধ হতেই চিনির সিরা ঘন হয়ে আসবে। এবার চুলা থেকে নামিয়ে পরিষ্কার বোতলে ভরে ঠান্ডা হলে বাতাস ঢুকবে না এমন করে মুখ বন্ধ করুন। এই আচার নরম খিচুড়ি বা পোলাওয়ের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

আমড়ার টক ঝাল মিষ্টি আচারআমড়ার টক ঝাল মিষ্টি আচার

উপকরণ: আমড়া ১ কেজি, সিরকা দিয়ে বাটা সরিষা দেড় টেবিল চামচ, সিরকা ১ কাপ, হলুদ গুঁড়া ১ চা-চামচ, মরিচ বাটা ১ চা-চামচ, আদা বাটা দেড় চা-চামচ, রসুন বাটা ১ চা-চামচ, সরিষার তেল ১ কাপ, ধনে গুঁড়া ১ চা-চামচ, ভাজা পাঁচফোড়ন গুঁড়া ১ চা-চামচ, লবণ ২ চা-চামচ ও চিনি দেড় কাপ।

প্রণালি: আমড়া ধুয়ে ছিলে পানিতে রাখুন। তারপর লেবুর মতো দুই পাশ থেকে কেটে একেকটি টুকরাকে লম্বালম্বিভাবে দুই ভাগ করে কাটুন। আরেকবার ভালো করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে একটি ট্রেতে ছড়িয়ে ফ্যানের নিচে কিছুক্ষণ রেখে দিন। বাটা মসলাগুলো সিরকা দিয়ে বেটে নিতে হবে। কড়াই বা প্যানে তেল গরম করে পাঁচফোড়ন বাদে অন্যান্য বাকি মসলা সিরকা দিয়ে কষিয়ে নিন। এবার আমড়া দিয়ে মসলার সঙ্গে মিশিয়ে ভালো করে নাড়ুন। চুলার আঁচ কমিয়ে ঢেকে রান্না করুন। আমড়া সেদ্ধ হলে চিনি দিয়ে ধীরে ধীরে নাড়ুন। পানি শুকিয়ে মাখা মাখা হলে পাঁচফোড়ন গুঁড়া দিয়ে মিশিয়ে নাড়ুন। মাখা মাখা হলে নামিয়ে কাচের বোতলে ভরে ঠান্ডা হলে মুখ বন্ধ করে দিন। আচার বোতলে ঢেলে মুখের ওপরে একটু সরিষার তেল ঢেলে মুখ বন্ধ করে দিতে হবে। আচার রোদে শুকিয়ে সংরক্ষণ করুন।

লেবুর আচার

লেবুর আচারউপকরণ: লেবু ৬টি, কাঁচা মরিচ ৬টি, চিনি সিকি কাপ, লবণ আধা কাপ, মরিচের গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, হলুদ গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, লেবুর রস ২টি লেবু থেকে নেওয়া।
ভাজা বিশেষ মসলার গুঁড়া: মেথি ১ চা-চামচ, সরিষা ১ চা-চামচ ও হিং ২-৪ চা-চামচ। এই মসলাগুলো আলাদা করে ভেজে একত্রে গুঁড়া করে নিতে হবে।
প্রণালি: লেবু ধুয়ে একেকটি লেবুকে ১০-১২ টুকরা করুন। কাঁচা মরিচ মাঝখান থেকে চিরে ফালি করে নিন। একটি শুকনা প্যানে লেবু ও কাঁচা মরিচ নিয়ে লবণ ও চিনি চামচ দিয়ে মিশিয়ে নিন। তারপর হলুদ ও মরিচের গুঁড়া দিয়ে একইভাবে মিশিয়ে নিন। সবশেষে ভাজা বিশেষ মসলার গুঁড়া ও লেবুর রস মিশিয়ে চুলায় দিয়ে আলতোভাবে মিশিয়ে নাড়ুন। একেবারে মৃদু আঁচে দুই ঘণ্টা অথবা পানি না শুকানো পর্যন্ত চুলায় রাখতে হবে। মাঝেমধ্যে নাড়তে হবে। খেয়াল রাখতে হবে যেন নিচে পোড়া না লাগে। মাখা মাখা হলে নামিয়ে কাচের বয়ামে ভরে ঠান্ডা করে নিন। এবার বাতাস না ঢোকে এমনভাবে মুখ বন্ধ করে রোদে দিন। সব ধরনের আচার রোদে দিয়ে সংরক্ষণ করা যায়।
এই আচারটি চুলায় না দিয়ে সরাসরি বোতলে ভরে রোদে দিয়ে ১ মাস পর খাওয়া যাবে। প্রতিদিন রোদে দিলে আচার মজে গেলে খেতে ভালো লাগবে।

রূপচর্চা ও স্বাস্থ্য বিষয়ক যে কোন তথ্যের জন্য আমাদের পেজ স্বাস্থ্য সেবা ।। Health Tips এ লাইক দিয়ে এক্টিভ থাকুন।

Check Also

দেশী মুরগীর শাহী চিকেন রোষ্ট (স্টেপ বাই স্টেপ ছবি সহ)

উপকরন – মুরগীর মাংস ১ কেজি (কিংবা ৬/৭টা লেগ পিস নিতে পারেন) – জয়ফল (১টা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *