Breaking News
Home > ব্যক্তিগত > টাঙ্গাইলের পতিতালয় থেকে উঠে আসা ধানমন্ডির অনিকার কাহিনি পড়ুন …চোখের পানি ধরে রাখতে পারবেন নাহ!

টাঙ্গাইলের পতিতালয় থেকে উঠে আসা ধানমন্ডির অনিকার কাহিনি পড়ুন …চোখের পানি ধরে রাখতে পারবেন নাহ!

মর্জিনার ওরফে অনিকার সাথে আমার পরিচয়টা একদম হঠাৎ করেই। একদিন ফার্মগেটের ওভারব্রীজ থেকে নীচে নামার সময় একটা পোস্টার চোখে পড়লো “টিউটর দিচ্ছি/নিচ্ছি”। নীচে আকর্ষনীয় বেতনের হাতছানি। একটা ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে পড়ুয়া বাচ্চাকে পড়াতে পারলে এত্তো টাকা??! ঢাকাতে নিজের থাকা-খাওয়ার খরচতো উঠে আসবেই সেই সাথে কিছু শখ-আহ্লাদও পূরন করে ফেলা যাবে! যেইভাবা সেই কাজ পোস্টারে দেওয়া ফোন নাম্বারে ফোন করে

সপ্তাহ দুয়েক পরের কথা। বিকেলে বাইরে যাবো বলে রেডী হচ্ছি এমন সময় ফোন আসলো। ওরা জানতে চাইছে ম্যাপললীফে ক্লাস এইটে পড়া এক ছাত্রীকে পড়াতে যেতে পারবো কিনা। ধানমন্ডিতে ছাত্রীর বাসায় গিয়ে পড়াতে হবে। আমিতো একপায়ে খাড়া। রাজি হয়ে গেলাম।

পড়াতে যেতে হবে আগামীকাল থেকেই। আমি বাসার ফোন নাম্বার নিয়ে ছাত্রীর বাসায় ফোন করলাম। ফোন ধরলেন ছাত্রীর মা। কি সুন্দর গলা ওনার, আহা! ভীষন ভদ্র। আমার সাথে বিস্তারিত ফোনেই অনেক আলাপ সেরে নিলেন। বললেন দুপুরে মেয়েকে স্কুল থেকে বাসায় নামিয়ে দিয়ে উনি গাড়ী নিয়ে ওনার বুটিক শপে গিয়ে বসেন কিন্তু আমি যেনো দুপুরের পর পরই ওনাদের বাসাতে পড়াতে চলে যাই কারন বিকেলে আমার নয়া ছাত্রীর নাকি আবার নাচের ক্লাস আছে। আমিতো ভাবছি এই সেরেছে!

ছাত্রীর বাসায় প্রথম যাবো অথচ বাড়ীতে অভিভাবক কেউ থাকবেননা…ব্যাপারটা কেমন হবে। যাহোক, সাত-পাঁচ ভাবতে ভাবতে দিনটা চলে গেলো। পরেরদিন দুপুরে আচ্ছা করে মাঞ্জা মেরে পৌঁছে গেলাম ধানমন্ডির বাসাতে।

কলিংবেলে চাপ দিয়ে একটু অপেক্ষা করতেই দরজা খুলে দিলো সুন্দরী এক তরুনী। আমি আন্দাজ করার চেষ্টা করলাম বয়স উনিশ-কুড়ি বছর হবে। সাদা সালোয়ার-কামিজে মোড়ানো ধবধবে ফর্সা শরীর, একটু গোলগাল একটা মুখ দেখলেই মনে হয় আদর করে দিই। ঠোঁটগুলো যেনো চুমু খাবার জন্য হাতছানি দিয়ে ডাকছে। আমি অবাক হয়ে ঠোঁটের মাঝ দিয়ে ঝকঝকে দাঁতের ঝিলিমিলি দেখছি এমন সময় প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলো তরুনী। আমি সংবিৎ ফিরে পেয়ে আসার কারন বললাম।

একটু মৃদু হেসে দরজা ছেড়ে দিলো তরুনী। ভেতরে আসার পথ দেখালো। বললো, আপনার নাম নিলয় আমি জানি। আমি মর্জিনা অবশ্য বাবা-মা আমাকে আদর করে ডাকে অনিকা।

আসলে মর্জিনা আমার দাদীর দেয়া সেকেলে নাম। এক সময় আমরা টাঙ্গাইলের সখিপুরে থাকতাম। বাবার ব্যবসার সুবাদে এখন ধানমন্ডি। আপনার ছাত্রীর একমাত্র বড়বোন। মন্ত্রমুগ্ধের মতো ওর কথা শুনতে শুনতে ড্রয়িং রুমের সোফাতে বসলাম।

আমার ছাত্রী এলো। বড়বোনের কাছে কিছুই নয় তবে বেশ সুন্দরী। আমি বই-খাতা-সিলেবাস নিয়ে আসতে বললাম। ও জানালো এখানে ড্রয়িং রুমে নয় ওর আলাদা রুম আছে পড়ার টেবিলটাও সেখানে। যাহোক, ছাত্রীকে একটু নাড়াচাড়া করে বুঝলাম বেশ মেধাবী সে। আমার বেশী খাটা-খাটুনী করা লাগবেনা।

সপ্তাহে চারদিন করে পড়াতে শুরু করলাম। এরমধ্যে তিনদিনই আনিকার সাথে দেখা হতো। প্রতিদিন ওর হাসিমুখ দেখে ঘরে ঢোকাটাকে দারুন উপভোগ করতাম আমি। আনিকার কথা সারাদিনই মাঝেমাঝে ভাবতাম। ওর মুখের স্নিগ্ধ সরলতা আমাকে মুগ্ধ করতো। চিন্তা করতাম একান্ত নিজের করে ওকে পেলে আমার জীবন ধন্য হতো।

ওর পোষাক ফুঁড়ে বেরিয়ে থাকা উন্নত বুকের কথা চিন্তা করলেই বাথরুমে দৌড়াতে হতো। আনিকা মাঝে মাঝেই ওর ছোটবোনের পড়াশোনার ব্যাপারে আমার সাথে কথা বলতো। এদিকে ক্লাস টেস্টে আমার ছাত্রী বেশ ভালো করা শুরু করলো। আমিও ওদের পরিবারের সবার সঙ্গে বেশ ফ্রী হয়ে ঊঠলাম।

এরমধ্যে আমার জন্মদিন এসে পড়লো। ওইদিন ছিলো আমার ছুটির দিন। আমার ফেসবুক ওয়াল আর মোবাইল ফোনের ইনবক্স বন্ধুদের মেসেজে মেসেজে এক্কেবারে পরিপূর্ণ। সবাই আমাকে এত্তো ভালবাসে দেখে মনটা বারবার আনন্দে ভরে উঠছিলো। সবার মেসেজের রিপ্লাই দিচ্ছিলাম। দেখি আমার ছাত্রীও ফেসবুকে আমাকে উইশ করেছে।

মোবাইলফোনের মেসেজ এর রিপ্লাই দিতে গিয়ে দেখলাম একটা আননোন রবি নাম্বার থেকে দারুন গোছালো উইশ ওয়ালা একটা মেসেজ। আমি কৌতুহলবশতঃ কল করলাম ওই নাম্বারটাতে।

ওপাশ থেকে এক তরুনীর হাস্যোজ্জ্বল কন্ঠস্বর ভেসে আসলো। আমার খুব পরিচিত লাগলো কিন্তু ঠিক ধরতে পারছিলামনা কে। ওপাশ থেকে বেশ কিছুক্ষন খুনসুটি করার পর হঠাৎ হাসি থামিয়ে জানালো, আমাকে চিনতে পারলেননাতো??!! আমি আনিকা!

আমি ভীষন অবাক হলাম আনিকার কাছ থেকে রেসপন্স পেয়ে। ও আমার কাছ থেকে মজা করে জানতে চাইলো কবে ট্রীট দেবো। আমি ওকে আর আমার ছাত্রীকে আজ বিকেলেই ওদের বাসার কাছেই কেএফসিতে দাওয়াত দিলাম। আনিকাকেও দেখলাম খুশী মনে রাজী হয়ে গেলো।

বিকালটা যেনো আসতেই চাইছিলোনা। একটু তাড়াহুড়া করেই রেডী হয়ে ধানমন্ডি কেএফসির সামনে গিয়ে দাঁড়ালাম। একটু পরেই দেখি ফুল আর গিফট্‌ হাতে আনিকা রিক্সা থেকে নামলো। নীল সালোয়ার-কামিজে ওকে যেনো একটা নীল পরীর মতো লাগছে। আমি মুগ্ধ হয়ে ওর এগিয়ে আসা দেখছি আর আমার বুকের মধ্যে ঝড় বয়ে যাচ্ছে।

ও কাছে এসে আমার হাতে ফুল আর গিফট্‌ তুলে দিয়ে বার্থডে উইশ করলো। আমিও মন্ত্রমুগ্ধের মতো ওর হাত থেকে ওগুলো নিলাম। হঠাৎ খেয়াল করলাম ওর সাথে আমার ছাত্রী আসেনি। আনিকা জানালো ওর নাকি নাচের কি একটা প্রতিযোগীতাতে যেতে হবে তাই নাচের ক্লাস থেকে গ্রুপ বানিয়ে দিচ্ছে সেখানে গেছে।

আনিকাকে নিয়ে কেএফসিতে দারুন একটা সময় কাটালাম আমরা। অনেক অনেক গল্প হলো। দুজনের অনেক পছন্দের মিল। একই লেখক, একই রঙ বা খাবার সবকিছুতেই এতো মিল খুব সহজেই আমাদের দুজনকে আরো অনেক কাছে এনে ফেললো।

ওখান থেকে বের হয়ে সন্ধ্যার ঝিরি ঝিরি বাতাসে দুজন হাঁটতে হাঁটতে ওকে ওর বাসার কাছাকাছি এগিয়ে দিয়ে এলাম।

রাতে আমার ফেসবুক খুলে দেখি আনিকার ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট। একসেপ্ট করে আমার জন্মদিনে সুন্দর একটা সন্ধ্যা বয়ে আনার জন্য ওকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়ে মেসেজ দিলাম। কিছুক্ষন পরেই দেখি মেসেজের রিপ্লাই এসে উপস্থিত। আনিকা ফেসবুকে দারুন একটিভ। আসলে বাসায় বসে বসে সময় কাটানোর জন্য ফেসবুক দারুন কাজ দেয়।

আনিকার সাথে আমার নিয়মিতই ফেসবুকে চ্যাট আর মেসেজ আদান-প্রদান হতে থাকে। আমরা প্রতিদিনের নানা কথা-বার্তা শেয়ার করতাম। নিজেদের ফটো শেয়ার করতাম। আমার প্রতিটা ফটোর নীচে আনিকার খুনসুটিভরা কমেন্টস এ বোঝাই। কবে কবে যেনো আমাদের ‘আপনি’ সম্পর্কটা খুব সহজ ‘তুমি’ তে নেমে এসেছে। ওর কাছ থেকে পাওয়া প্রতিটা মেসেজই আমার হৃদয় ছুঁয়ে যেত।

এরমধ্যে আমার ছাত্রীর পরীক্ষা শুরু হলো। পরীক্ষা শেষে বেশ লম্বা একটা ছুটি। আমার কাছ থেকেও বেশ কিছুদিনের ছুটি। পরেরদিন সকালে গেলাম ছাত্রীর বাসায়। আনিকার সঙ্গে অনেকদিন দেখা হবেনা ভাবতেই বুকের মধ্যে মুচড়ে উঠছিলো।

বাসায় ফিরেই ফেসবুক খুলেই বড় একটা নিঃশ্বাস নিয়ে সাহস করে চিঠিটা লিখে সেন্ড করে দিলাম।
আনিকা,

যখন তোমায় দেখি মনে শান্তি লাগে… লুকিয়ে লুকিয়ে দেখি তোমায়… যাতে তুমি না দেখতে পাও আমায়… আমি বুঝতে দিতে চাই না তোমায়… জানি তবুও তুমি বুঝে ফেল আমি যে তোমায় লুকিয়ে লুকিয়ে দেখছি… আমি বুঝতে পারি তুমি ইচ্ছে করে আমার সামনে দিয়ে যাও যেন আমি তোমায় ভাল করে দেখি…

Check Also

Screenshot_7-28

“ও বয়সে ছোট, কিন্তু আমাদের মাঝে অনেক কিছু হয়েছে” এখন কি করি?

“আপু, আমার একজন বয়ফেন্ড আছে। ও খুব কেয়ারিং, বয়স আমার চেয়ে অনেক ছোট হওয়ার পরও। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *