Breaking News
Home > অপরাধ > দৃশ্যটি ধারণ করা হয়েছে পাকিস্তান থেকে! দেখুন দিন দিন কত অবনতির দিকে যাচ্ছে পাকিস্তান !

দৃশ্যটি ধারণ করা হয়েছে পাকিস্তান থেকে! দেখুন দিন দিন কত অবনতির দিকে যাচ্ছে পাকিস্তান !

সম্মান রক্ষার্থে পাকিস্তানে নারী হত্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশটির স্বাধীন মানবাধিকার কমিশন জানিয়েছে, প্রায় এগারশ নারী তাদের আত্মীয় দ্বারা খুন হয়েছেন। কারণ তারা বিশ্বাস করতেন এইসব নারীদের দ্বারা তাদের পরিবার অপমানিত হয়েছে।
সংস্থাটির বার্ষিক রিপোর্টে দেখা যায়, প্রায় ৯০০ নারী যৌন সহিংসতার শিকার। এর মধ্যে প্রায় আটশ নারী আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন। ২০১৪ সালে এই সম্মান সংক্রান্ত আক্রমণে একহাজার এবং ২০১৩ সালে ৮৬৯ জন নারী মারা যান।

একটি সূত্র থেকে বলা হয়েছে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই অপরাধ গুলো অপ্রকাশ্যই থেকে গেছে।

এ প্রসংগে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ বলেছেন, “সম্মান রক্ষার্থে হত্যা ইসলাম সমর্থন করে না”।

এ হত্যাকান্ডগুলোর সম্ভাব্য কারণ হিসেবে তিনি বলেন, “পারিবারিক কলহ, নিজ পছন্দে বিয়ে এবং কথিত অবৈধ সম্পর্কের জের ধরে ২০১৫ সালে এ হত্যাকান্ডগুলো সংগঠিত হয়েছে। এর মধ্যে ১০৯৬ জন ভিকটিমকে গুলি করে হত্যা করা হয়। তাছাড়া অনেকেই এসিড সন্ত্রাসের স্বীকার হয়েছেন”।

রিপোর্ট অনুসারে, এই সব হত্যার মধ্যে পাঞ্জাবে এক ভাই তার দুই বোনকে চরিত্রহীনতার অভিযোগে হত্যা করে। অপরদিকে পাঞ্জাবের তিন কিশোরীকে তাদের মামাতো ভাই; পরিবারকে অসম্মান করার অভিযোগে হত্যা করে।

এই রিপোর্টে বলা হয়, যেখানে নারীদের মধ্যে এই সম্মান রক্ষার্থে হত্যার হার এত বেশি সেখানে এই একই ইস্যুতে মাত্র ৮৮ জন পুরুষকে হত্যা করা হয়েছে।

ফেব্রুয়ারিতে পাঞ্জাবসহ দেশটির সর্বত্র নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে ল্যান্ডমার্ক আইন জারি করা হয়েছে।

তবে দেশটির ত্রিশটিরও বেশি মূলধারার ইসলামি রাজনৈতিক দল এই আইন রদের প্রতিবাদে আন্দোলনের হুমকি দিয়েছে। এই দলগুলো মনে করে নারীদের অধিকার বৃদ্ধির সাথে অশ্লীলতার হার বৃদ্ধি পাবে। তাছাড়া এই আইনের ফলে বিবাহ বিচ্ছেদের বিচ্ছেদের হার বাড়বে যা ঐতিহ্যবাহী পারিবারিক নিয়ম ধ্বংস করে দেবে বলেই ধারণা পোষণ করেন তারা।

এই সকল অভিযোগের মধ্যে ২০১৪ সালে ফারজানা পারভীন হত্যাকান্ডকে সবচেয়ে কুখ্যাত হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। জানা গেছে, তিনি পরিবারের বিরুদ্ধে বিয়ে করেছিলেন বলে তাকে পাথর ছুড়ে হত্যা করা হয়েছিল। এই মামলায় তার বাবা, ভাই, বোন এবং সাবেক বাগদত্তাকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। তার এক ভাইকে দশ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, পাকিস্তানি চলচিত্র নির্মাতা শারমীন ওবায়েদ চিনয় সম্মান হত্যাকান্ডের উপর একটি ডকুমেন্টারি তৈরি করেন। “এ গার্ল ইন এ রিভার- প্রাইস অব ফরগিভেন নেস” নামের এই ডকুমেন্টারি নির্মাণ করে তিনি একাডেমি অ্যাওয়ার্ড পান।

তার দেয়া বিবৃতিতে তিনি বলেন, “এটা এমন একটি ফিল্ম যা দেখে প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ সম্মান রক্ষার্থে হত্যা প্রতিরোধ আইন প্রণয়ন করতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়েছিলেন এবং পরে করেনও”।

সূত্রঃ বিবিসি

ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন। 

Check Also

rohinga

বার্মার রোহিঙ্গা মুসলিমদের অত্যাচারের শেষ কোথায়…. (ভিডিও সহ)

বার্মার রোহিঙ্গা মুসলিমদের অত্যাচারের শেষ কোথায়…. (ভিডিও সহ) বার্মার রোহিঙ্গা মুসলিমদের অত্যাচারের শেষ কোথায়…. (ভিডিও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *