Breaking News
Home > অবাক বিশ্ব > নগ্ন হয়ে সিংহের খাঁচায় ঝাঁপ…অতঃপর..! (দেখুন ভিডিও)

নগ্ন হয়ে সিংহের খাঁচায় ঝাঁপ…অতঃপর..! (দেখুন ভিডিও)

নগ্ন হয়ে এক যুবক চিড়িয়াখানায় সিংহের খাঁচায় ঝাঁপ দেন। তারপর সব দর্শনার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে পড়ে আতংক। সবাই তাকে নিয়ে বিচলিত। ছুটে এলেন চিড়িয়াখানার কর্তৃপক্ষ। এদিকে খাঁচায় থাকা সিংহগুলো তাকে নিয়ে কিছুক্ষণ খেলা করল। কিন্তু সে ক্ষণ আর বেশি স্থায়ী হয়নি। হিংস্র রূপ ধারণ করে সিংহগুলো। যুবককে বাঁচাতে চিড়িয়াখানার নিরাপত্তাকর্মীরা সিংহগুলোর উদ্দেশ্যে গুলি ছুঁড়ে। কোনো রকম উদ্ধার করে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু ডাক্তাররা তাকে আর বাঁচাতে পারেননি। মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন যুবক। ঘটনাটি চিলির এক চিড়িয়াখানায় ঘটেছে। এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ দুটি সিংহও মারা যায়। খবর ডেইলি মেইলের।

খবরে বলা হয়, শনিবার (২১ মে) ফ্রানকো লুইজ ফেরাডে রোমান (২০) নামের ওই যুবক প্রাচীর ভেঙে সিংহের খাঁচায় প্রবেশ করে। আর হাতের নাগালে এমন শিকার পেয়ে সিংহটিও আক্রমণ করতে মোটেও ভুল করেনি। এতে মারাত্মকভাবে আহত হন ওই যুবক। গুরুতর আহতাবস্থায় তাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

দর্শনার্থীদের চোখের সামনেই রোমান সিংহের খাঁচায় ঝাপ দিলে সবাই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। ঝাঁপ দেওয়ার আগে নিজের জামা কাপড় খুলে নেন তিনি।

সিংহের খাঁচায় থাকা সিংহগুলো এক পর্যায়ে তাকে নিয়ে খেলতে শুরু করে। হামলার একটা পর্যায়ে চিড়িয়াখানার রক্ষীরা তাকে বাঁচাতে সিংহগুলোকে গুলি করতে বাধ্য হয়। এতে দুটি সিংহ প্রাণ মারা যায়।

মেট্রোপলিটন পার্ক পরিচালক মাওরিকো ফাব্রি নিশ্চিত করেন, রোমান মারা যাওয়ার আগে তার কাপড়ে সুইসাইড নোট লিখে গিয়েছিলেন।

চিড়িয়াখানার পরিচালক আলেজান্দ্রা মন্তালিভ ডেইলি মেইলকে বলেন, ‘আমরা মনে করি লোকটি দর্শনার্থী হিসেবেই টিকিট কেটে চিড়িয়াখানায় ঢুকেছিল। তাকে বাঁচাতে এত দ্রুত সময়ের মধ্যে সিংহগুলোকে ঘুমের ইনজেকশন পুশের সময় ছিল না। তাই গুলি করা হয়। দুটি সিংহের মৃত্যুর জন্য চিড়িয়াখানা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন

Check Also

একরাশ রহস্য !!! ৯০ বছর পর বারমুডা ট্রাইঅ্যাঙ্গলে হারানো জাহাজ ফিরেছে একা !

একরাশ রহস্য !!! ৯০ বছর পর বারমুডা ট্রাইঅ্যাঙ্গলে হারানো জাহাজ ফিরেছে একা ! বি: দ্র …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *